নিউজপলিটিক্স

‘একটা অ’প’দা’র্থ কোথাকার’,- ভরা সভায় কৃষিমন্ত্রীকে কটাক্ষ অনুব্রতর!

Advertisement

নিজস্ব প্রতিবেদন :-যত এগিয়ে আসছে একুশের বিধানসভা ভোট তত ক্ষমতায় পাকাপোক্ত ভাবে থাকার জন্য চলছে প্রস্তুতি ।কোথাও যেন প্রস্তুতির কোন প্রস্তুতির কোন খামতি না থাকে সেদিকে নজর রাখছে দলের শীর্ষ কর্তারা ।অঞ্চলে অঞ্চলে, বুথে বুথে, ওয়ার্ডে ওয়ার্ডে প্রতিদিন ,প্রতিনিয়ত চলছে মিটিং-মিছিল আলোচনাসভা।

Advertisement

ভোটকে মাথায় রেখে ক্ষমতার সাথে কোন রকম আপোষ করতে চান না কোনো রাজনৈতিক দলই। কিন্তু এই সভা করতে গিয়ে দলের কর্মীকে অপদার্থ বলে কটাক্ষ করলেন বীরভূম জেলা সভাপতি অনুব্রত মণ্ডল।

Advertisement

শুক্রবার রামপুরহাট ১ নম্বর ব্লকে বুথ ভিত্তিক কর্মী সম্মেলনে বীরভূম জেলা তৃণমূল সভাপতির পাশেই বসেছিলেন কৃষিমন্ত্রী তথা স্থানীয় বিধায়ক আশিষ বন্দোপাধ্যায়। আয়াশে কেন পিছিয়ে দল? বুথ সভাপতির কাছে জানতে চান অনুব্রত। উত্তরের সভাপতি বলেন যে এলাকাতে কোনো উন্নয়ন হয়নি । পাল্টা প্রশ্ন অনুব্রত মণ্ডলের ” কেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ৬৪ প্রকল্প কাজ হয়নি ?

Advertisement

সভাপতি জানান তার উত্তরে “হ্যাঁ হয়েছে কিন্তু মানুষ চাইছেন রাস্তা হোক জল আসুক সে সব কিছু হয়নি” এরপর অনুব্রত মণ্ডল তাকে প্রশ্ন করে “আপনি এ বিষয়ে প্রধানকে জানিয়েছিলেন ?”সভাপতি তখন উত্তর দেন “হ্যাঁ অনেকবার জানাইছি কমপক্ষে ১০ বার । প্রথমে বলেছিলেন পুজোর আগে হবে , কিন্তু এখন বলছেন আর হবেনা।”

Advertisement

এর পর ঘুরে যায় আলোচনার মোড় । এবার প্রধানের কাছে জবাব চান অনুব্রত। বলেন, কেন কাজ হয়নি। এত টাকা পেয়েছ। এত মেনটেন্যান্স পেয়েছ। তাহলে কাজ হয়নি কেন? অঞ্চল প্রেসিডেন্ট কে? এরপর ওই অঞ্চলের প্রধান বলেন “আমি এই অঞ্চলের প্রধান “। এরপরেই অনুব্রতর রোষের মুখে পড়েন মঞ্চে তাঁরই পাশে বসে থাকা মন্ত্রী আশিস বন্দ্যোপাধ্যায়! মন্ত্রীকে  “অপদার্থ” বলতেও শোনা যায়। অনুব্রতকে বলতে শোনা যায়, আর অপদার্থ আছেন আশিস ব্যানার্জি। ওর কথা শুনব কেন?

Advertisement

যদিও এই ঘটনাকে পুরোপুরি অস্বীকার করেছেন ওই মন্ত্রী । তিনি বলেন অনুব্রত মণ্ডলের সঙ্গে আমার দাদা ভাইয়ের সম্পর্ক ।এটা নিছকই একটি পারিবারিক ঘরোয়া সমস্যা । কিন্তু এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে কটাক্ষ করতে ছাড়েনি বিরোধীদল। বীরভূম জেলার বিজেপি নেতা দিলীপ ঘোষ এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে জানান যে” হতে পারে সেটা তাদের ব্যাপার কিন্তু কে জানে কখন দল পরিবর্তন করবে সেই ঘরোয়া মানুষ।” তবে অনুব্রত মণ্ডলের এই ধরনের মন্তব্য রীতিমতো কিছুটা হলেও অস্বস্তিতে ফেলেছে শাসক দলকে।

Advertisement
Advertisement

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button