নিউজভিডিও

যেভাবে করা হয় ধ’র্ষি’তা নারীর ডাক্তারি পরীক্ষা, ভিডিও দেখলে চোখে জল চলে আসবে আপনার!

নিজস্ব প্রতিবেদন:-ধর্ষ-নের পর একজন মহিলার কি মানসিক অবস্থায় থাকতে পারে তা সাধারন মানুষের বোঝার মতন নয়। কিভাবে তাকে সমাজের লাঞ্ছনার শি-কা-র হতে হয়, আমাদের এই সভ্য সমাজ কিভাবে সেই ধ-র্ষি-তা মহিলাকে ছোট করে তা খুবই অমানবিক বিষয়। আদৌ মেয়েটির ধ-র্ষ-ণ হয়েছে কিনা?

জানার জন্য যেভাবে তার শারীরিক পরীক্ষা করা হয় তা অনেক সময় ধর্ষ-ণে-র য-ন্ত্র-ণার থেকেও বেশি ক-ষ্টদায়ক। যখন কোন মহিলা ধর্ষ-ণে-র পর বিচার চাইতে যান তখন তার যেভাবে পরীক্ষা করা হয় সেগুলো জানলে আপনি চোখের জল ধরে রাখতে পারবেন না।

প্রথমেই তাকে সম্পূর্ণ নগ্ন করে আল্ট্রাভায়োলেট রশ্মির সাহায্যে দেখে নেওয়া হয় তার শরীরের কোথাও ধর্ষ-কে-র বীর্য লেগে আছে কিনা?
এরপরের পরীক্ষার বিবরণ গুলি প্রায় শি-উ-রে ওঠার মতন।

১. কোন একটা কাগজের উপর দাঁড়িয়ে ধ-র্ষিতা-কে ডাক্তারদের উপস্থিতিতে তার শরীরে থাকা সব জিনিস খুলে ফেলতে হয় যাতে তার শরীরে থেকে খোলা প্রত্যেকটি অংশ ল্যাবরেটরি তে সঠিকভাবে পরীক্ষা করা যায়।

২.সম্পূর্ণ ন-গ্ন করে তার শরীর থেকে র-ক্ত বী-র্য ধুলো বালি সব সংগ্রহ করে রাখা হয়।

৩. ধ-র্ষ-ণের ফলে সৃষ্টি হওয়া সব কাটা ছড়ার দাগ,আ-ঘা-ত পরীক্ষা করে দেখায় হয় খুঁটিয়ে।

৪.শরীরের প্রায় প্রত্যেক অং-শ, প্রধানত যৌ-না-ঙ্গের একদম কাছ থেকে ছবি নেওয়া হয়।

৫.ক্ষ-তস্থান গু-লি-র ক্ষ-ত কিভাবে সৃষ্টি হয়েছে কোন পাথরে লেগে, কোথাও আ-ঘা-ত পেয়ে বা কোন ধারালো অ-স্ত্রে-র সাহায্যে কি না সেগুলো পরীক্ষা করে দেখা হয়।

৬.মেয়েটিকে কি অবস্থায় অজ্ঞান না জ্ঞানত ধ-র্ষ-ণ করা হয়েছে তা পরীক্ষার মাধ্যমে বোঝার চেষ্টা করা হয়।

৭.যৌনাঙ্গে বীর্য র-ক্ত ক্ষ-ত-স্থান খুব ভালো করে পরীক্ষা করা হয়, এবং যদি ৪৮ ঘণ্টা আগে অ-পরা-ধ টি ঘটে থাকে তাহলে কাচের র-ডে-র সাহায্যে সেখান থেকে জলীয় র-স সংগ্রহ করা হয় ।

ধর্ষণ প্রমাণ করে আইনে বিচার করার জন্য যেভাবে ডাক্তার এই পরীক্ষাগুলো করা হয়, তা সত্যিই বে-দ-না দা-য়-ক। এরপরেও অনেক সময় প্রশাসনের গা-ফি-লতির জন্য বা ধ-র্ষকে-র টাকা পয়সার জোরে ধ-র্ষি-তা সঠিক বিচার পান না।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button