নিউজভিডিও

মুখের সমস্ত কালো দাগ ও গর্ত দূর করে ত্বক করে ফেলুন একদম ঝকঝকে ফর্সা, দারুন কাজ দেয় এই পেস্ট!

নিজস্ব প্রতিবেদন:-ব্র-ণ থেকে শুরু করে দাগছোপ সংক্রা-ন্ত সমস্যায় আমরা কমবেশি সকলেই ভুগি।সঠিক উপায় না জানার কারণে তেমন কোনো ব্যবস্থাও নিতে পারিনা।ত্বকে অতিরিক্ত সিবাম নিঃসৃত হয়ে অনেক সময়ই ত্বক তৈলাক্ত হয়ে যায়, ফলে দেখা যায় পিম্পল এবং অন্যান্য দাগছোপ।আপনি খুব সহজ কিছু ধাপের মাধ্যমে চাইলে এই সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে পারেন।আসুন উপায় গুলো জেনে নেই-

সবার প্রথমেই ফেস ক্লেনসিং এর জন্য আমরা অরেঞ্জ পিল পাউডার,এবং কাঁচা দুধ মিশিয়ে একটি মিশ্রণ তৈরি করবো।এবং এই মিশ্রণটি প্রায় ১০ মিনিট মতন ফেসে ব্যবহার করবো।এই মিশ্রণটি খুবই উপকারী আমাদের চেহারা থেকে তৈলাক্ত ভাব কমানোর জন্য।এছাড়াও এই মিশ্রণটি আমাদের ত্বককে মাইল্ড এক্সপোলিয়েট করে মরা কোষ নিরাময় করতে সাহায্য করবে।

এবার পরের ধাপ স্কিন টোনিং এর।স্কিন টোনার প্রস্তুত করতে হলে,প্রথমেই একটি কাপে অর্ধেক কাপ সমান গরম জল নিতে হবে।এবার এতে কিছুক্ষন একটি গ্রিন টি ব্যাগ ডুবিয়ে রেখে দিতে হবে। টি তৈরি হলে এটিকে একটি অন্য পাত্রে ঠাণ্ডা করে নিতে হবে, ঠান্ডা হওয়ার পর এটিকে কোনো স্প্রে করা বোতলে নিয়ে নেবেন।এরপর শেষে এতে যোগ করবেন অ্যাপল সাইডার ভিনিগার এবং ৪-৫ ফোঁটা টি ট্রি এসেনশিয়াল ওয়েল।এবার আপনি টোনার টিকে পুরো মুখে স্প্রে করে নিন।এই পদ্ধতিটি আপনার ত্বকের দাগছোপ সমস্যার অসাধারণ একটি সমাধান।

তৃতীয় ধাপে আপনাদের প্রয়োজন হবে ফেস মাস্ক।এর উপকরণ হিসেবে প্রথমেই দরজার গ্রিন টি পাউডার।একটি ছোট বাটিতে গ্রিন টি পাউডার এর সঙ্গে দারচিনি পাউডার,মধু এবং সবশেষে একদম স্বল্প পরিমাণ জল যোগ করে নিন।প্রায় ২০ মিনিট মতন এটি আপনার ফেসে লাগিয়ে রাখুন।ব্রণর ব্যাকটেরিয়াকে ধ্বং-স করতে এটি খুবই উপকারী।

অন্তিম ধাপ আমরা শেষ করবো ময়শ্চারাইজার এর মাধ্যমে। এটি তৈরি করতে হলে হাতে একটু অ্যালোভেরা জেল আর টি ট্রি এসেনশিয়াল অয়েল নিয়ে মিশিয়ে নিন এবং ভালো করে ফেসে অ্যাপ্লাই করুন ।টি ট্রি এসেনশিয়াল অয়েল খুবই কার্যকর ব্রণর পরবর্তী কালো দাগ মেটাতে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button