নিউজ

হাথরাস কাণ্ডের নির্যাতিতার হয়ে বিনে পয়সায় মামলা লড়বে নির্ভয়ার আইনজীবী সীমা সমৃদ্ধি! সোশ্যাল মিডিয়ায় শুভেচ্ছার ঝড়!

নিজস্ব প্রতিবেদন :-নির্ভয়া কাণ্ডের ঘটনা নিশ্চয়ই আপনার মনে আছে ? কিভাবে একটি চলন্ত বাসে একটি প্যরামেডিকেলে ছাত্রীকে যৌ-ন নিগ্রহ ধর্ষ-ণ করা হয়েছিল। তার ঘটনাটা এখনো জ্যান্ত । ২০১২ সালের ঘটনা ঘটে যাওয়া এ ঘটনায় অভিযুক্ত দের ফাঁ-সি হয়েছে ২০২০ তে অর্থাৎ দীর্ঘ এই ৮ টা বছর ধরে চলেছে তার মামলা ।

এবং যার জন্য এসেছে সফলতা আইনজীবী কে আমরা সকলেই জানি । কিভাবে সাহসিকতার মাধ্যমে বুক চিতিয়ে লেগেছে নির্যাতিতার সুবিচারের দাবীতে। সেই আইনজীবী এবার উত্তরপ্রদেশের নির্যাতিতার হয়ে লড়বেন মামলা। এমনটাই সূত্রের খবর ।

সে সময় ২০১২-র ১৬ ডিসেম্বর নয়াদিল্লিতে চলন্ত বাসে যৌ-ন নিগ্রহের শি-কা-র প্যারামেডিকেল ছাত্রীর হয়ে মামলা লড়া আইনজীবী সীমা সমৃদ্ধি কুশওয়া হাথরাসের মেয়েটির হয়েও সুবিচার চেয়ে আদালতে সওয়াল করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন । তিনি বলেছেন উত্তরপ্রদেশের এই ঘটনাটি আমি প্রথম থেকে পর্যবেক্ষণ করছি । ইতিমধ্যে আমি ওই নির্যাতিতা বাড়ি বাবা মার সাথে কথা বলেছি। আমি তাদের হয়ে এ মামলা লড়তে চাই এবং সম্পূর্ণ বিনামূল্যে ।

কার্যত এই ঘটনাটি সামনে আশাতে কিছুটা হলেও আশাবাদী দেশের সাধারন মানুষরা । কারণ নির্ভয় কাণ্ডে যেভাবে এই আইনজীবী বুক চিতিয়ে লড়ে গিয়েছিলেন, দোষীদের শাস্তির দাবিতে তাতে করে মনে করা হচ্ছে উত্তরপ্রদেশের দোষীদের ঠিক একইভাবে তিনি ফাঁসির কাঠগড়ায় দাঁড় করাবেন ।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য নির্ভয়াকাণ্ড মামলায় গোড়া থেকেই নির্যাতিতার বাবা-মায়ের আইনজীবী ছিলেন সীমা। মামলার প্রতিটি তথ্য পুঙ্খানুপুঙ্খ ভাবে পেশ করে জোর সওয়াল করেন তিনি। সীমা নির্ভয়া জ্য়োতি ট্রাস্টেরও আইনি পরামর্শদাতা। দেশের অন্যতম সেরা শিক্ষা প্রতিষ্ঠান দিল্লি বিশ্লবিদ্য়ালয়ের ছাত্রী সীমা ২০১৪ সালে সুপ্রিম কোর্টে ওকালতি শুরু করেন। ২০১৪-র ২৪ জানুয়ারি থেকে শুরু করে এখনও পর্যন্ত তিনি ওই ট্রাস্টের সঙ্গে যুক্ত রয়েছেন।

উত্তরপ্রদেশে নির্যাতিতা জিভ কেটে দেওয়াতে হয়তো পরিষ্কারভাবে বলে উঠতে পারেনি তাদের নাম গুলো ,কিন্তু তার হয়ে ফের আরও একবার দেশের আদালতে দাঁড়িয়ে দোষীদের শাস্তি এবং নির্যাতিতর সুবিচারের জন্য লড়বেন সাহসী আইনজীবী । যা শুনে আশাবাদী দেশের সাধারণ নাগরিক ।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button