নিউজ

“প্রকাশ্যে গুলি করা হোক ধ-র্ষ-কদের”- উত্তরপ্রদেশে গণধর্ষিতা তরুণীর মৃ’ত্যু’তে ক্ষো’ভ উগরে দিলেন কঙ্গনা!

Advertisement

নিজস্ব প্রতিবেদন:-আমাদের দেশ স্বাধীনতার পর প্রায় ৭০ বছর পেরিয়ে এসেছে। ঘটেছে অনেক কিছু উন্নতি এবং ঘটে চলেছে । কিন্তু এখনো পর্যন্ত দেশ নারী সুরক্ষায় সেরকমভাবে আত্মনির্ভরতায় উঠতে পারেনি দেশ । একটি সমীক্ষা বলছে প্রতিদিন গড়ে ৯১ জন মহিলা ধ-র্ষ-ণ হয় এবং বছরে তা সংখ্যা প্রায় ৩৩,০০০ এর কাছাকাছি ।

Advertisement

মেয়েদের প্রতি এই জঘন্যতম অ-প-রা-ধ দিন দিন বেড়েই চলেছে দেশজুড়ে। রীতিমতো দেশের মেয়েরা সন্ধ্যে নামলে রাস্তায় একা বেরোতে ভয় পায়। অভিযুক্তকে গ্রে-ফ-তার করে ঠিকই কিন্তু মামলা চলে দীর্ঘদিন ধরে । আত্মা শান্তি পেতে লেগে যায় অনেক বছর । আমরা খবরের কাগজে বা সংবাদ মাধ্যমে প্রায়ই শুনে থাকি কোথাও না কোথাও গণধর্ষণের শিকার হয়েছে কোনো না কোনো মেয়ে । এবার আরো একবার উত্তর প্রদেশ সাক্ষী থাকলে এরকমই এক জঘন্যতম অপরাধের । আসুন জানি বিস্তারিত ভাবে ।

Advertisement

উত্তরপ্রদেশে এক দলিত সম্প্রদায়ের মেয়ে মায়ের সাথে মাঠে কাজ করতে যায় এবং উচ্চবর্ণের বেশ কয়েকজন তাকে অপহরণ করে এবং নির্মম ভাবে অ-ত্যা-চা-র করে শারীরিকভাবে । এতেও থেমে থাকেনি তারা। মেটেনি লালসা । শেষে রীতিমতো শ্বা-সরো-ধ করে খু-ন করার চেষ্টা করা হয় ।

Advertisement

এমনকি তার জিভ এর বিভিন্ন অংশ কেটে দেওয়া হয়। তাকে স্থানীয় হাসপাতালে ভর্তি করলে ডাক্তারবাবুরা জানান যে তার দুটি পা এবং একটি হাতে কোনো প্রতিক্রিয়া নেই । এই অবস্থাতেও সে জারি রেখেছে তার লড়াই । চেয়ে থেকেছি দোষীদের শাস্তির দাবিতে । এবং ম্যাজিস্ট্রেটের কাছে তার বয়ান উল্লেখ করেছে অভিযুক্তদের নাম।

Advertisement

এরপর মঙ্গলবার দিন টানা ১৪ দিনের মৃ-ত্যু-র সাথে পাঞ্জা লড়ে অবশেষে হেরে যায় জীবন যুদ্ধে ওই তরুণী। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য সোমবারই তাঁকে আলিগড়ের জওহরলাল নেহরু মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল থেকে দিল্লি আনা হয়। এই ঘটনা সামনে আশাতে দেশজুড়ে শুরু হয় শোরগোল ।প্রতিবাদ মিছিল ।এ ঘটনার প্রতিবাদে আরো একবার সরব হলেন বলিউডের কুইন’ কঙ্গনা রানাউত।

Advertisement

এর আগে বলিউডের সুশান্ত সিং রাজপুতের মামলাকে ঘিরে বেশ কয়েকবার বিতর্কে শিরোনামে এসেছিল এই কঙ্গনা রানাউত। এবার সরব হলেন উত্তরপ্রদেশে গণধর্ষণের বিরুদ্ধে। তিনি বলেন ” সবার সামনে গুলি করে মেরে ফেলা হোক ধর্ষকদের। প্রত্যেক বছর যে হারে গণধর্ষণের সংখ্যা বেড়ে চলেছে দেশে, তার সমাধন কোথায়! দেশের জন্য এটি একটি লজ্জাজনক দিন।

Advertisement

আমরা নিজেদের মেয়েদের রক্ষা করতে পারছি না, এর থেকে লজ্জার আর কিছু হতে পারে না’ । এরূপ ঘটনা সামনে আশাতে আরো একবার ভারতবর্ষের নারী সুরক্ষা প্রশ্নের মুখে । তাহলে কি এখনো নারীরা স্বাধীন নয় ? নাকি শুধুমাত্র বেছে বেছে নিম্ন বর্ণের মানুষদেরকে আ-ক্র-ম-ণ করার মানসিকতা বেড়েছে উচ্চবর্ণ মানুষদের মধ্যে ? প্রশ্ন অনেকের

Advertisement

Advertisement
Advertisement

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button