নিউজ

‘আমি টেট পরীক্ষা দিতে বা প্রশিক্ষণ নিতে বলিনি, আমার ভরসায় থাকবেন না, চাকরি দিতে পারব না; টেট পাশ করা চাকরি প্রার্থীকে বললেন পার্থ!

নিজস্ব প্রতিবেদন :-সামনে বিধানসভার ভোট । তাই শাসক দলকে পরাস্ত করতে রীতিমত উঠে পড়ে লেগেছে বি-রো-ধী দলগুলি। সে মতো চলছে সমস্ত জোগাড় যন্ত্র। খুঁটিয়ে খুঁটিয়ে দেখা হচ্ছে শাসকদলের কোথায় কোথায় থেকেছে খামতি এবং সেগুলো প্রকাশ্যে নিয়ে এসে মানুষের বিশ্বাস অর্জন করতে চাইছে বি-রো-ধী দল গুলি। তবে বিরোধী দলের মধ্যে অন্যতম বিরোধী দল বিজেপি । যে বিজেপি বাংলায় আগামী দিনের স্বপ্ন দেখছে ক্ষমতায় আসার ।

লকডাউন এর কারণে প্রায় এক বছরের কাছাকাছি হতে চলল স্কুল-কলেজ বন্ধ ।কিন্তু এমতাবস্থায় নতুন করে কোন চাকরির পরীক্ষা সরকার নেবে কিনা সে নিয়ে আছে সংশয় । আর সেরকম একটি ঘটনা নিয়ে ছড়ালো উ-ত্তে-জ-না নেট দুনিয়া। এবং এই উত্তেজনার পিছনে বা ঘটনাটি সামনে আনার পেছনে যার অবদান রয়েছেন তিনি হলেন বিজেপির নেতা অনুপম হাজরা ।

সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়াতে শিক্ষামন্ত্রীর সাথে এক চাকরির পরীক্ষার্থীর কথোপকথনে অডিও ক্লিপ সোশ্যাল মিডিয়াতে পোস্ট করেন অনুপম হাজরা যাকে ঘিরে শুরু হয় বিতর্ক। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য সেই অডিও ক্লিপ এর সত্যতা বিচার করেনি আমাদের নিউজ পোর্টাল ।টেট পাস করা চাকরি পরীক্ষার্থী শিক্ষামন্ত্রীকে জানান যে সংবাদ মাধ্যমের অনুষ্ঠানে তাঁর(পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের) বক্তব্য শুনে তিনি টেট পাস করার পর ডিএড করেছেন। সেই ভরসাতেই তিনি আছেন।

জবাবে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, “আমার ভরসায় আপনি থাকবেন না। নিজের যোগ্যতার উপরে ভরসা করুন। আমি আপনাকে টেট পরীক্ষা দিতে বা প্রশিক্ষণ নিতে বলিনি। যে সংবাদ মাধ্যম (এবিপি আনন্দ) দেখিয়েছে তাদের কাছে গিয়ে জিজ্ঞাসা করুন।”।শিক্ষামন্ত্রী আরও বলেন, রাজ্যে কয়েক লক্ষ চাকরি প্রার্থী প্রশিক্ষণ নিয়ে বসে আছেন। সবাইকে কি চাকরি দেওয়া সম্ভব? এই মুহূর্তে নিয়োগ করা সম্ভব নয়। টেট পাশ করে থাকুন না কেন, এই মুহূর্তে রাজ্য সরকারের পক্ষে চাকরি দেওয়া সম্ভব নয়। নিয়োগ করে সেই খরচ চালাতে পারবে না রাজ্য।

তবে এই অডিও ক্লিপ কে হাতিয়ার করে মানুষের ভুল ভ্রান্তি বা শা-স-কদ-লের খামতি তুলে ধরার চেষ্টা করেছেন বিজেপি নেতা অনুপম হাজরা। তিনি এই অডিও ক্লিপ কে উদ্দেশ্য করে বলেছেন যে “পার্থ দা, মেজাজ হারাবেন না, জনগণ মেজাজ হারালে তখন পশ্চিমবঙ্গে টেকা দায় হয়ে যাবে!

বেচারা প্রার্থী খুব কষ্ট করে পড়াশোনা করার পর, এত বছর অপেক্ষা করার পর, ট্রেনিং করার পর, আপনার কাছ থেকে জাস্ট কিছু জিনিস জানতে চেয়েছে, তৃণমূল সরকার টেট নিয়ে কতটা দুর্নীতি করেছে সবাই জানে বা বুঝতে পারে, তাই চাকরি না দিতে পারেন, অন্তত চাকরি-প্রার্থী টির সঙ্গে ভালো করে কথা বলুন।” তবে এর আগে বিজেপি অনেক রকম ভুল ভুল খবর ছড়িয়ে পড়েছিল বিভ্রান্তিতে । সম্প্রতি এই ধরনের ঘটনা কতটা যুক্তিযুক্ত এবং সত্য তা নিয়ে রয়েছে অনেক প্রশ্ন ।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button