নিউজ

পনেরো দিনের লড়াই শে’ষ, প্রা’ণ’ও শে’ষ! ফের ধ’র্ষ’ণে জীবন গেলো আরও এক ভারত-তরুণীর!

নিজস্ব প্রতিবেদন :-দিল্লি নির্ভায়া কান্ড নিশ্চয় এখনও দগদগে ভাবে আপনার মনে গেঁথে আছে? ভুলে যাওয়া কথা তো নয় । কারণ ভুলে যাওয়ার মতন ঘটনাটি ছিল না । শুধুমাত্র মারধর বা গ-ণধ-র্ষ-ণ নয় তার পাশাপাশি নির্মমভাবে খু-ন করা হয়েছিল ওই তরুণীকে । দিল্লি নির্ভয়া কান্ড রীতিমতো দেশকে নাড়া দিয়েছিল ব্যাপকভাবে ।

যার প্রভাব এখনো মাঝে মাঝে দেখা যায় দেশের বিভিন্ন কোনে। এবার আরো একবার সেই দিল্লি নির্ভয়াকে মনে করিয়ে দিলো উত্তর প্রদেশ । উত্তরপ্রদেশে সম্প্রতি একটি দলিত মেয়েকে গণধ-র্ষ-ণ এবং খু-নে-র চেষ্টার অ-ভি-যো-গ ওঠে । এরপর এই ব্যাপক সমালোচনার মুখে পড়ে উত্তরপ্রদেশে বিজেপি সরকার। আদতে ঘটনাটা কি হয়েছিল তা বিস্তারিত ভাবে জানাবো আপনাদের।

উত্তরপ্রদেশের এক দলিত মেয়ে তার মায়ের সাথে মাঠে কাজ করতে যান। বয়স উনিশ কুড়ির কাছাকাছি । চার উচ্চবর্ণের লোক তাকে অ-প-হ-রণ করে এবং নির্মমভাবে গণধ-র্ষ-ণ করে । শুধুমাত্র এখানেই ক্ষো-ভ মেটেনি তাদের । এরপর ভে-ঙে ফেলা হয় মেরু-দ-ন্ড, কে-টে ফেলা হয় জি-ভে-র এর বিভিন্ন অংশ ।

গোটা শরীর ক্ষ-ত-বি-ক্ষ-ত করে দেওয়া হয় । এবং শেষে শ্বা-স-রো-ধ করে খু-নে-র চেষ্টাও করা হয় । প্রাথমিকভাবে তাকে স্থানীয় হাসপাতালে ভর্তি করলে ডাক্তারবাবুরা জানান যে দুটি পা এবং হাতে কোন সাড় ছিলনা। অবস্থার উন্নতি না ঘটায় তাকে রেফার করা হয় দিল্লির এক বেসরকারি হাসপাতালে। তারপরে চলে দীর্ঘ দিন মৃ-ত্যু-র সঙ্গে লড়াই।

অবশেষে দীর্ঘ ১৫ দিন মৃ-ত্যু-র সাথে লড়াই করার পর জীবন যুদ্ধে হেরে যায় ওই ভারত- তনয়া। কিন্তু মৃ-ত্যু-র আগে অব্দি ছাড়েনি চেষ্টা। জারি রেখেছে লড়াই । তাই ম্যাজিস্ট্রেটের কাছে বয়ানে উল্লেখ করে গেছেন ওই চার উচ্চবর্ণের অভিযুক্তের নাম । রীতিমতো ফের আরও একবার নারী সুরক্ষা নিয়ে বড় প্রশ্নের মুখে যোগী আদিত্যনাথের সরকার । দেশজুড়ে চলছে ব্যাপক উত্তেজনা প্র-তি-বা-দ। দোষীদের গ্রেপ্তার করা হলেও ঠিক কবে পাবে শাস্তি তা এখনো কারোর জানা নেই।

দিন দিন বেড়ে চলা এই জঘন্যতম অপ-রা-ধের উত্তরপ্রদেশ যে সব থেকে বেশি সক্রিয় তা ফের আরো একবার প্রমান করলো এই ঘটনা। এই ঘটনার উপর এবং উত্তর প্রদেশের সরকারের ওপর ক্ষো-ভ উগরে দিয়ে প্রিয়াঙ্কা গান্ধী টুইট করেন এবং তিনি জানান ” সফদরজঙ্গ হাসপাতালে মৃ-ত্যু হয়েছে হাথরাসের দলিত কন্যার।

২ সপ্তাহ ধরে মৃ-ত্যু-র সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছিলেন ওই তরুণী। হাথরাস, শাহজাহানপুর, গোরক্ষপুরে একের পর এক ধ-র্ষ-ণে-র ঘটনা গোটা রাজ্যকে নাড়িয়ে দিয়েছে। উত্তরপ্রদেশের আইনশৃঙ্খলার চূড়ান্ত অবনতি হয়েছে। মহিলাদের সুরক্ষার নামগন্ধ নেই। যোগী আদিত্যনাথ, উত্তরপ্রদেশের মহিলাদের সুরক্ষিত রাখার দায় আপনার।” ।

পুলিশ এই ঘটনা ত-দ-ন্ত শুরু করেছে যদিও তবুও পরিবারের তরফ থেকে জানানো হয়েছে প্রথম দিকে পুলিশ কোনো সহযোগিতা করেনি। এরই মধ্যে উঠে আসে আরও এক চা-ঞ্চ-ল্য-কর তথ্য । আলিগড়ের ফরেনসিক ডিপার্টমেন্টের ডাক্তার বাবু বলেন প্রাথমিক চিকিৎসা করার পর গণ-ধ-র্ষ-ণে কোনো প্রমাণ পাওয়া যায়নি তরুণী শরীরে । যাকে ঘিরে ফের শুরু হয় বিতর্ক সমালোচনার ঝড় । এই মুহূর্তে দেশবাসী শুধুমাত্র চেয়ে আছে ওই ভারত তনয়া, তহ সাহসী যোদ্ধার সুবিচারের আশায় ।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button