নিউজ

প্রধানমন্ত্রীর আবাস যোজনা নিয়েও দুর্নীতি, চার বছরেও সম্পূর্ণ তৈরী হলোনা ঘর, উল্টে একাউন্ট থেকে উধাও টাকা!

নিজস্ব প্রতিবেদন:-বিভিন্ন সরকারি যোজনার টাকা নিয়ে দুর্নীতির অ-ভি-যো-গ নতুন নয়, আবারও সেই অ-ভি-যো-গেরই প্রতিফলন ঘটতে দেখা গেলো বসিরহাট পুরসভার খোদ চেয়ারম্যানের ওয়ার্ডে।অ-ভি-যো-গ প্রধানমন্ত্রী আবাস যোজনার ঘর নিয়ে।ব্যাংকের পাসবই কেড়ে নেওয়ার হুমকিও দেওয়া হয় চেক বইতে সই করতে না চাওয়ায়।এমনকি পাস বই চাইতে গেলে মারধরও করা হয়।

৩০ জনের উপর দুর্নীতির শি-কা-র উপভোক্তার গণ আবেদনের ভিত্তিতে চেয়ারম্যানের খাস লোক মসিবরের নামে অভিযোগের দায়ের করা হয়েছে থানা, এসডিপও, এসপি-র কাছে।উত্তর ২৪ পরগনার বসিরহাট পুরসভার ৫ নম্বর ওয়ার্ডের নৈহাটি ও পশ্চিম দন্ডিরহাটে ঘটনাটি ঘটে।

মূল অভিযোগকারীইসমাইল সর্দার এর বক্তব্য অনুযায়ী,২০১৬ সালে তাঁর নামে প্রধানমন্ত্রী আবাস যোজনায় ঘর বরাদ্দ হয়। কিন্তু মসিবর রহমান মন্ডল তাঁর কাছ থেকে ব্যাঙ্কের পাসবই প্রায় কেড়ে নেন।বলা হয় পাসবই না দিলে একটা ইটও গাঁথতে দেওয়া হবে না। এমনকি চেক বইতে সই করতে না চাইলে মারধরও করা হয় ইসমাইলকে একাধিকবার।

শুধুমাত্র তাই নয় ব্যাঙ্ক থেকে স্টেটমেন্ট তুলে তিনি জানতে পারেন,তাঁর প্রাপ্য ৩,৭৭,০০০ টাকার সম্পূর্ণটাই তুলে নেওয়া হয়েছে।কিন্তু চার বছর পেরিয়ে যাওয়া সত্বেও ঘরের কাজ অসম্পূর্ণ। দরজা, জানালা নেই। প্লাস্টার হয়নি। অগত্যা সেই ঘরেই পরিবার নিয়ে বাস করছেন ইসমাইল। প্রায় একই অভিযোগ জোহর আলি, সুমিত্রা বিশ্বাস, নূর ইসলামদেরও।

যদিও চেয়ারম্যান তপন সরকার এই সম্পূর্ণ অভিযোগটি অস্বীকার করেন,এবং জানান মসিবরের বি-রু-দ্ধে-র
অভিযোগ সম্বন্ধে খোজ নিয়ে দেখবেন।এতগুলি মানুষ দুর্নীতির স্বীকার হওয়ার পরেও প্রশাসন কিন্তু সেই তিমিরেই।কোনরকম ব্যবস্থা বা পদক্ষেপ এখনও নেওয়া হয়নি বলেই জানা গেছে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button