নিউজ

পুজোর আগেই মধ্যবিত্তের রান্নার গ্যাসের সিলিন্ডার নিয়ে আসলো বড় আপডেট, পড়তে পারেন সমস্যার মুখে!

নিজস্ব সংবাদদাতা: বাঙালির শ্রেষ্ঠ উৎসব দুর্গোৎসব শুরু হবার আর মাত্র কয়েকদিন।করোনা আবহে শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতি তুঙ্গে৷ ম-হামা-রী চলছে তবুও, উৎসবে মেতে উঠার প্রস্তুতিও নিচ্ছে সাধারণ মানুষ৷ ঘর গোছানোর কাজ করছে সবাই, নিজের সাধ্য মত। কারণ, করোনা তে সবকিছু ওলট পালট হয়ে গেছে।

সবারই আয় উপার্জন কম হলেও সারা বছর অপেক্ষায় থাকার পর, দুর্গাপুজোতে আনন্দ করার চেষ্টা চলছে৷ তবে, উৎসবের আগে সামান্য বিড়ম্বনায় পড়ছেন আমজনতা। এই মুহূর্তে রান্নার গ্যাসের জোগান নিয়ে অসুবিধায় ভুগছেন অনেকই৷

কলকাতা ও সংলগ্ন এলাকায় গ্যাসের সাপ্লাই অনেকখানি কমেছে৷ পুজোর সময় সেই প্রভাব গ্যাসের সাপ্লাই ব্যবস্থার ওপর পড়তে পারে- এই নিয়ে আশঙ্কা৷ কারণ, প্রতিবছর পুজোর সময় রাস্তাঘাটে যানবাহন নিয়ন্ত্রিত ভাবে চালানো হয়৷ এর ফলে ডিস্ট্রিবিউটরের গোডাউনের সিলিন্ডার পৌঁছতে ভীষণ অসুবিধে হয়পুজোর ছুটি এবং উৎসবের যান নিয়ন্ত্রন- এই দুই এর যাঁতাকলে জট পেকে যায় সাপ্লাইয়ে।

পুজোর দিন দশেক দেরি হলেও, যোগানে ইতিমধ্যেই তার প্রভাব পরে গেছে৷ সাধারণত, গ্যাস বুকিং করার পর দু’দিনের মধ্যে গ্রাহকদের বাড়িতে সিলিন্ডার পৌঁছে দেওয়া হয়৷ তবে এই মুহূর্তে দু’দিনের মধ্যে গ্যাস ডেলিভারি বেড়ে গিয়ে দাঁড়িয়েছে ৫ দিনএর বেশি৷ এমনকি এক সপ্তাহ কেটে যাওয়ার পর মিলছে গ্যাস সিলিন্ডার৷

ডিলারদের দাবি, পুজো চলাকালীন সিলিন্ডার ডেলিভারি দেওয়া নাও হতে পারে, এই ভয়ে অনেক গ্রাহক আগাম গ্যাস বুকিং করছেন৷ আনলক পর্বে গ্যাস বুকিংয়ে কোনোরকম বাধা না থাকায় সকলেই বুক করছেন। এমনিতেই পুজোতে সিলিন্ডার মজুত রাখার ইচ্ছেতে প্রতি বছর ‘প্যানিক’ বুকিং হয়, এবং এতেই বেড়ে যায় চাহিদা।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button