নিউজ

প্রায় সাড়ে ৭ মাস পর বুধবার থেকে রাজ্যে চলবে লোকাল ট্রেন, দেখে নিন সময়সূচি!

নিজস্ব প্রতিবেদন :-অবশেষে দীর্ঘ সাড়ে সাত মাস পর রাজ্যের বুকের চলতে শুরু করবে ট্রেনের চাকা। লকডাউন এর জেরে দীর্ঘ সাত মাস ধরে বন্ধ রয়েছে লোকাল ট্রেন পরিষেবা । কিন্তু এ রাজ্যের অধিকাংশ মানুষের জীবন এবং জীবিকা নির্ভর করে লোকাল ট্রেনের উপরে। কাজেই সেই সমস্ত মানুষগুলি পড়েছে চরম ভোগান্তিতে। এর আগে বিভিন্ন স্টেশনে লোকাল ট্রেন চালু করার দাবি নিয়ে সরব হয়েছেন সাধারণ যাত্রীরা ।

তার সাথে সাথে রয়েছে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতা মন্ত্রীরা। সেই দাবি কে সম্মতি জানিয়ে আবার লোকাল ট্রেন পরিষেবা চালু করার সিদ্ধান্ত নিল ভারতীয় রেল এবং রাজ্য সরকার।আমরা জানি বেশ কিছুদিন আগে লোকাল ট্রেন পরিষেবা চালু করা নিয়ে ভারতীয় রেলের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছিল যে রাজ্য সরকারের তরফ থেকে সবুজ সঙ্কেত মিলে লোকাল ট্রেন চালাতে প্রস্তুত ভারতীয় রেল । এবার সেই সবুজ সঙ্কেত মিলল রাজ্য সরকারের তরফ থেকে । আগামী বুধবার থেকে দৌড়াতে শুরু করবে লোকাল ট্রেন । এমনটাই জানানো হচ্ছে সূত্রের খবর।

তবে লোকাল ট্রেন চালু করার আগে এতদিন ধরে বন্ধ করে থাকা ট্রেন গুলি কে ভালো মতন স্যানিটাইজার ব্যবস্থা করছে। এর পাশাপাশি দফায় দফায়। হচ্ছে বৈঠক । টাইমটেবিল নিয়ে বেশ কিছুটা পরিবর্তন এনেছে রাজ্য সরকার। পুরনো টাইমটেবিল ট্রেন গুলি চলবে ঠিকই কিন্তু নতুন বেশ কিছু সংযোজন করা হয়েছে।

হাওড়া এবং শিয়ালদা ডিভিশন মিলে মোট ৩৬২ ট্রেন চালানোর সিদ্ধান্ত নেয় ভারতীয় রেল এবং পূর্ব রেল ।
১)রাত ২.৪০: হাওড়া-মেদিনীপুর প্রথম লোকাল। ২)রাত ৩: খড়গপুর থেকে ছাড়বে হাওড়ার প্রথম লোকাল।
৩)রাত ৩.০৫: পাঁশকুড়া থেকে ছাড়বে হাওড়ার প্রথম লোকাল।
৪)ভোর ৪.০৫: মেদিনীপুর থেকে ছাড়বে হাওড়ার আসার প্রথম লোকাল।
৫)ভোর ৪.২০: মেচেদা থেকে হাওড়া যাবে প্রথম লোকাল।

৬)সন্ধে ৭.১৫: মেদিনীপুর থেকে হাওড়ার শেষ লোকাল।
৭) রাত ৮.১৮: পাঁশকুড়া থেকে হাওড়ার শেষ লোকাল।
৮)রাত ৮.৪৮: হাওড়া থেকে খড়গপুরের শেষ লোকাল।
৯)রাত ৮.১৫: হাওড়া থেকে মেদিনীপুরের শেষ লোকাল।

১০)দিঘা, শালিমার, আমতা, সাঁতরাগাছি থেকে ৬২টি লোকাল।
১১)হাওড়া থেকে মেদিনীপুরের জন্য ১৩ জোড়া লোকাল।
১২)হাওড়া থেকে খড়গপুরের মধ্যে চলবে ৪ জোড়া লোকাল।
১৩)হাওড়া থেকে পাঁশকুড়ার মধ্যে চলবে ৯ জোড়া লোকাল।
১৪)হাওড়া থেকে মেচেদার মধ্যে চলবে ৫ জোড়া লোকাল।

লোকাল ট্রেন পরিষেবা চালু হওয়া তে এক বড়োসড়ো হাসি দেখা গেছে সাধারণ রাজ্যবাসীর মুখে ।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button