নিউজ

বিশ্বের প্রতিটি মানুষের কাছে করোনা ভ্যাকসিন পৌঁছে দিতে মারতে হবে প্রায় 5 লাখ হাঙর! সাড়া মিললো গবেষণায়

নিজস্ব প্রতিবেদন :-দেশ এই মুহূর্তে মানুষ যদি সব থেকে কোন কিছুর দিকে চেয়ে থাকে সেটা হল করোনা ভ্যাকসিন । কবে বেরোবে এই করোনা টিকা তা আমাদের সকলেরই অজানা । তবে থেমে নেই ভারতসহ বিশ্বের বিভিন্ন গবেষণাকেন্দ্র। বিভিন্ন রকম ভাবে চেষ্টা করা হচ্ছে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব বাজারে আনার।

কিন্তু এখনও পর্যন্ত সম্ভব হয়ে উঠতে পারে নি ।এবারে এক গবেষণায় উঠে এলো এমন এক বিস্ফোরক তথ্য যা শুনে রীতিমতো কপালে ভাঁজ পড়েছে প্রাণী বিশেষজ্ঞদের। কি এমন ঘটনা ? যার জন্য রীতিমতো চিন্তিত হয়ে পড়লেন প্রাণী বিশেষজ্ঞরা ? আপনাদের সামনে তুলে ধরি সেই তথ্য।

অজানাকে ভাইরাসের ভ্যাকসিন তৈরিতে রীতিমতো দিনরাত এক করে খেটে চলেছে দেশ তথা বিশ্বের বিভিন্ন গবেষকরা। অনেক জায়গায় শেষ পর্যায়ে চলছে ট্রায়াল । শুধুমাত্র অনুমতির অপেক্ষা । তারপর কিছুটা হলেও আশার আলো দেখছে বিশ্ববাসী। ঠিক সেই সময় ব্রিটেন এর একটি সংস্থা জানিয়েছে হাঙ্গর এর যকৃৎ থেকে এক ধরনের তেল পাওয়া যায় যাকে বলা স্কোয়ালিন”। তার থেকে তৈরি করা যেতে পারে করোনার প্রতিষেধক টিকা। কিন্তু ঠিক কতগুলি হাঙ্গর লাগবে এই টিকা উৎপাদন করতে? এই বিষয়ে এলো এক আজব তথ্য ।

ওই সংস্থা জানাচ্ছে , গোটা বিশ্ববাসী কে অন্তত একবার করে টিকা দিতে গেলে অন্তত আড়াই লাখ হাঙ্গরের প্রয়োজন । আবার সেই টিকা দুবার দিলে সেই সংখ্যা দাঁড়াবে পাঁচ লাখ। এই তথ্য সামনে আসতেই চিন্তার ভাঁজ পশুপ্রেমীদের মধ্যে । ইতিমধ্যে তলানিতে ঠিকেছে হাঙ্গর এর সংখ্যা । এখন এই সিদ্ধান্ত নিল সংকটের মুখে পড়বে প্রাণিকুল ।

এর বিকল্প পথ বা উপায় হিসাবে অনেকে আখ থেকে পাওয়া কৃত্রিম স্কোয়লীন ব্যবহার করার অনুরোধ জানিয়েছে ।তারা মনে করিয়ে দিচ্ছেন, অন্য কোনো প্রাণী হত্যা করে কোনো সমস্যার দীর্ঘস্থায়ী সমাধান সম্ভব নয়। ইতিমধ্যেই হাঙরের সংখ্যা তলানিতে ঠেকেছে। আরো ৫ লাখ হাঙরের হত্যার আশঙ্কা বিপন্ন প্রজাতির তালিকায় হাঙরকে আরো কয়েক ধাপ এগিয়ে দেবে বলেই মনে করছেন অনেকে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button